4:04 pm - Wednesday July 18, 2018

জেএসসি-জেডিসিতে কমছে ২০০ নম্বর

জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষায় এবার সাতটি বিষয়ে মোট ৬৫০ নম্বরের পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। শিক্ষার্থীদের ওপর বাড়তি চাপ কমাতে জেডিসির ৮৫০ নম্বরের পরীক্ষায় ২০০ নম্বর কমানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৩১ মে) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত জাতীয় শিক্ষাক্রম সমন্বয় কমিটির (এনসিসিসি) সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বৈঠকের পর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন এ তথ্য জানান।

২০১৭ সালের জেএসসি পরীক্ষায় পরীক্ষার্থীদের মোট ১০টি বিষয়ে ৮৫০ নম্বরের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২০১৮ সাল থেকে সাতটি বিষয়ে ৬৫০ নম্বরের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

বিদ্যামান ব্যবস্থায় ২০১৭ সালে জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে মোট ১০টি পত্রে ৮৫০ নম্বরের। এরমধ্যে বাংলা প্রথমপত্র ১০০, দ্বিতীয়পত্র ৫০, ইংরেজি প্রথমপত্র ১০০, দ্বিতীয়পত্র ৫০, গণিত এবং বিজ্ঞান, বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় এবং ধর্ম, গার্হস্থ্য অর্থনীতি/কৃষি বিষয়ে ১০০ করে ৮০০ নম্বর ও তথ্য প্রযুক্তি ৫০ নম্বর।

সচিব বলেন, ‘এবার বাংলা ও ইরেজিতে ১০০ নম্বরের পরীক্ষা দিতে হবে।’ প্রথমপত্র, দ্বিতীয়পত্র থাকবে না।

এসময় তিনি আরো বলেন, ‌‌আমরা পরীক্ষার চাপ কমাতে চাই, যত নম্বর কমাতে চাই ঠিক তত নম্বরের সিলেবাসও কমবে, দুই সাবজেক্ট বাদ দিয়ে একটা সাবজেক্ট করার জন্য প্রস্তাবনা এসেছিল, যে পরিমাণ নম্বর কমবে সিলেবাসও সে পরিমাণ কমবে। ‘

সচিব বলেন, এবার পরীক্ষা থেকে বাদ যাচ্ছে কৃষি ও গার্হস্থ্য বিজ্ঞানসহ চতুর্থ বিষয়। এই ১০০ নম্বরের ক্লাসে ধারাবাহিক মূল্যায়ন হবে।

একইভাবে জেডিসির ১০৫০ নম্বরের পরীক্ষায় ২০০ নম্বর কমছে। এবার পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ৮৫০ নম্বরের।

এ বছর এমসিকিউ আগের মতোই থাকছে, তবে এক লাইন করে লেখার ব্যবস্থা রাখা যায় কিনা, তা নিয়ে ভাবা হচ্ছে।

২০১৭ সালের জেএসসিতে পরীক্ষায় বাদ দেওয়া হয়েছিল চারু ও কারুকলা, শারীরিক শিক্ষা এবং কর্মমুখী শিক্ষা। এবার সমাপনী পরীক্ষা থেকে বাদ দেওয়া হলো কৃষি ও গার্হস্থ্য বিজ্ঞান। এসব বিষয়ের ধারাবাহিক মূল্যায়ন করবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

Filed in: শিক্ষা সংবাদ

Comments are closed.